হোমনায় ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ

হাফেজ নজরুল (কুমিল্লা) : কুমিল্লার হোমনার শ্রীমদ্দিতে ৬ষ্ঠ শ্রেণীর এক ছাত্রীকে হাত-পা বেঁধে ধর্ষণের অভিযোগ উঠে প্রতিবেশী রিক্সাচালক আ. মতিন (৫৫) এর বিরুদ্ধে।

গত বৃহস্পতিবার সকালে হোমনা পৌর সভার শ্রীমদ্দি গ্রামে ঘটে এ ঘটনা।
ধর্ষক আ. মতিন ওই গ্রামের লালু মিয়ার ছেলে ও ভিকটিমের সম্পর্কে নানা হয়।
একটা মহল ঘটনাটি গোপনে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হলে শুক্রবার বিকালে ভিকটিমের মা বাদী হয়ে হোমনা থানায় মামলা নং ৩ দায়ের করা হয়। ঘটনায় ধর্ষিক মতিন পলাতক রয়েছে।
থানা ও ধর্ষিতার পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ভিকটিম উপজেলা সদরের একটি বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির নিয়মিত ছাত্রী। বাবা-মাসহ পরিবারের লোকজন কাজে চলে যাওয়ায় ভিকটিম তার ছোট ভাইকে সাথে নিয়ে সে ঘরের চৌকির উপর শুয়ে ছিল। এ সময় প্রতিবেশী রিক্সাচালক আবদুল মতিন (সম্পর্কে নানা) ঘরে ঢুকে ঘরের দরজা বন্ধ করে দেয় এবং দুই ভাই বোনের হাত-পা ও মুখ ওড়না দিয়ে বেঁধে ফেলে। পরে স্কুল ছাত্রীকে বিবস্ত্র করে ধর্ষণ করে।
এ সময় ভিকটিমের গোঙানীর শব্দে পাশের বাড়ির তার চাচাতো বোন এগিয়ে এলে ধর্ষক পালিয়ে যায়। পরে হাত-পা বাধা ও বিবস্ত্র অবস্থায় ভিকটিমকে উদ্ধার করে তার বাবা-মাকে খবর দেয়া হয়। ধর্ষিতার পরিবার বিষয়টি নিয়ে প্রতিবেশীদের সহযোগিতা চাইলে গোপনেই রফার চেষ্টা চলে; কিন্তু রফা করতে না পেরে একদিন পর শুক্রবার বিকালে হোমনা থানায় ধর্ষণের অভিযোগে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা নং-৩, তারিখ ৫/৬/২০২০ রুজু করা হয়।
হোমনা থানার (ওসি) তদন্ত মো. আমিনুর রসুল জানান এ ঘটনায় ধর্ষক আবদুল মতিনকে আটক করতে পুলিশ সর্বাত্মক চেষ্ঠা চালাচ্ছে। যতক্ষন ধর্ষক গ্রেফতার না হবে ততক্ষন পুলিশি অভিযান অব্যহত থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *